নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

প্রাণঘাতি করোনাভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করেছে বরিশাল মহানগরীতে। আর তাই রোড জোনের আওতায় আসছে সিটি এলাকা। এরই মধ্যে কোন্ কোন্ ওয়ার্ড বা এলাকা রেড জোনে থাকবে তা চিহ্নিত করা হয়েছে। আজ মঙ্গল অথবা বুধবারের মধ্যেই ওইসব এলাকা রেড জোন মানে পুরোপুরি লকডাউন ঘোষণা করবে সংশ্লিষ্ট প্রশাসান।

এদিকে সিটি কর্পোরেশন এলাকা ছাড়াও বরিশাল জেলার কোন্ কোন্ উপজেলা এবং কোন্ ইউনিয়ন কোন্ ধরনের (রেড, ইয়োলো, গ্রিন) লকডাউন বা অবরোধ করা হবে সে বিষয়েও অনেকটা সিদ্ধান্তে পৌঁছেছে স্বাস্থ্যবিভাগ। এরই মধ্যে জেলার সিভিল সার্জন কার্যালয় থেকে প্রতিটি উপজেলায় এ সংক্রান্ত নোটিশ প্রেরণ করা হয়েছে।

মঙ্গলবার ১৬ জুন বিষয়টি নিয়ে জেলা প্রশাসন কার্যালয়ে বৈঠক শেষে জোন ভিত্তিক লকডাউনের বিষয়ে ঘোষণা আসতে পারে। বরিশাল জেলা প্রশাসক কার্যালয়, সিভিল সার্জন কার্যালয় এবং সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্যবিভাগ সূত্রে এই তথ্য নিশ্চিত হওয়া গেছে।

বরিশাল বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালকের কার্যালয়ের তথ্য অনুযায়ী বিভাগের ছয় জেলার মধ্যে করোনা ভাইরাস সংক্রমণের হার সব থেকে বেশি বরিশাল জেলায়। আবার বরিশাল জেলার মধ্যে বেশী বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এলাকায়। বরিশাল বিভাগে সোমবার সকাল পর্যন্ত এক হাজার ৫৮৫ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে ৪শত জন সুস্থ হলেও মৃত্যু হয়েছে ৩৩ জনের।

এদিকে বিভাগের ছয় জেলার মধ্যে সর্বোচ্চ ৯২৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। বাকি পটুয়াখালীতে ১৯২, ভোলায় ১৩৯ জন, পিরোজপুরে ১০৬ জন, বরগুনায় ১৩১ জন ও ঝালকাঠি জেলায় ৯৩ জন আক্রান্ত শনাক্ত হয়েছেন। তাছাড়া বিভাগে মৃত্যু হওয়া ৩৩ জনের মধ্যে বরিশাল মহানগরীসহ জেলায় সর্বোচ্চ ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে। যার মধ্যে রয়েছেন চিকিৎসক ও প্রকৌশলী।

এরপর দ্বিতীয় সর্বোচ্চ মৃত্যু পটুয়াখালীতে। সেখানে ১০ জনের মৃত্যু হয়েছে। এছাড়া ঝালকাঠিতে চারজন, পিরোজপুরে তিনজন, ভোলায় দু’জন ও বরগুনায় দু’জনের মৃত্যু হয়েছে। বরিশাল জেলার পরিসংখ্যানে দেখাগেছে, এ জেলায় আক্রান্ত শনাক্ত হওয়া ৯২৪ জনের মধ্যে ২৪১ জন নারী এবং ৬৮৩ জন পুরুষ। তাছাড়া মোট আক্রান্তদের মধ্যে বরিশাল নগরীতেই ৭২৭ জন।

এছাড়া সদর উপজেলায় আক্রান্তের সংখ্যা আরও ১৬ জন। এদিকে স্বাস্থ্যবিভাগের জরিপ অনুযায়ী করোনাভাইরাসের মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন এলাকা। তাই এই এলাকাকে ঝুঁকিপূর্ণ অর্থাৎ রেড জোন ঘোষণার সিদ্ধান্ত নিয়েছে স্বাস্থ্যবিভাগ। এরই মধ্যে এ সংক্রান্ত বিষয়ে গতকাল সোমবার বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের স্বাস্থ্য বিভাগকে ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য চিঠি দেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বরিশাল জেলার সিভিল সার্জন ডা. মনোয়ার হোসেন।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে