নিজস্ব প্রতিবেদকঃ

সকাল বেলা বাড়িতেই খেলছিল ৬ বছরের শিশু ফাহিম। খেলতে খেলতে মায়ের কাছে ৫টাকার বায়না ধরে। কিন্তু মা টাকা দিতে না চাওয়ায় অবুঝ ফাহিম হাশুয়া দিয়ে মায়ের বুকে কোপ দেয়। শিশু সন্তানের এই হাসুয়ার কোপে মারাত্মক জখম মা। পরে তাকে রাজশাহী মেডিক্যাল কলেজ (রামেক) হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মৃত্যুবরণ করেন। গতকাল সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রাজশাহীর পবা উপজেলার বেড়পাড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। নিহত নারীর নাম ফাতেমাতুজ জোহরা (২৮)।

তিনি ওই এলাকার রবিউল ইসলামের স্ত্রী এবং রাজশাহীর গোদাগাড়ী উপজেলার বিদিরপুর গ্রামের মৃত কাজিম উদ্দিনের মেয়ে। দামকুড়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মাজহারুল ইসলাম জানান, হাসপাতালের জরুরি বিভাগে আনার পর রবিউল ইসলাম জানিয়েছেন তার ছয় বছর বয়সী ছোট শিশু খেলছিল। এ সময় পাঁচ টাকার বায়না করে। কিন্তু না দিতে চাওয়ায় সে হঠাৎ করে মায়ের বুকে হাসুয়া দিয়ে কোপ দেয়। পরে মায়ের বুকে রক্ত দেখে ওই শিশু বাইরে চলে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায় এবং শিশুকে কোলে করে বাড়িতে নিয়ে আসে। ওসি আর বলেন, পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগের (সিআইডি) সদস্যরা ঘটনাস্থলে গিয়ে নমুনা সংগ্রহ করেছে। ওই শিশু বুঝতে না পেরে এমন ঘটনা ঘটিয়ে ফেলেছে। লাশের ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। এখন পরিবারের সদস্যদের মতামতের ভিত্তিতে পরবর্তী আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

একটি উত্তর ত্যাগ

আপনার মন্তব্য লিখুন দয়া করে!
এখানে আপনার নাম লিখুন দয়া করে